JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.

সর্বনিম্ন দরে পুঁজিবাজারের ১৩০ কোম্পানি

২০১০ সালের ধস পরবর্তী ৭ বছর অতিক্রান্ত হলেও এখনো ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি পুঁজিবাজার। ২০১৭ সালের শুরু থেকে বাজারের লেনদেনের গতি ফিরলেও এক বছরের ব্যবধানে বাজারের সার্বিক মূল্য সূচক ও লেনদেন আবারো তলানিতে ফিরেছে।.

অব্যাহত দর পতনে বুধবার দিনশেষে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) তালিকাভুক্ত ৩০৩টি কোম্পানির মধ্যে ১৩০টির শেয়ার দর সর্বনিম্ন অবস্থানে স্থিতি পেয়েছে। অর্থাৎ বিগত এক বছরের ব্যবধানে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর ৪২.৯০ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দর সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে। তালিকভুক্ত কোম্পানিগুলোর অব্যাহত দর পতনে ডিএসইর বাজার মূলধন ৩ মাসের ব্যবধানে ৩৫ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা কমেছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অপর্যাপ্ত জোগান ও কারসাজি চক্রের সক্রিয়তায় ২০১০ সালে বাজারের শতভাগ শেয়ার অতিমূল্যায়িত্ব হয়ে ছিল। যার ফলশ্রুতিতে পরবর্তীতে বাজারে বড় ধরনের ধস হয়েছে। ধস পরবর্তী সময়ে বাজারের শতাধিক নতুন কোম্পানি তালিকাভুক্ত হওয়ায় বাজারে শেয়ার সরবরাহ বেড়েছে। কিন্তু বর্তমানে তারল্য সংকটে বাজারের সিংহভাগ শেয়ার অবমূল্যায়িত্ব হচ্ছে।

এছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংকের এক্সপ্লোজর লিমিট নির্ধারণে ত্রুটি, এডিআর রেশিও, ব্যাংকগুলোর তারল্য সংকট বিনিয়োগকারীদের মধ্যে নতুন করে আস্থা সংকট সৃষ্টি করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় অব্যাহত দর পতনে ভুগছে পুঁজিবাজার।

Comments

comments

error: Content is protected !!